প্রভাবশালীদেরও সাজা হয়, নুসরাতের মামলার রায় তার প্রমাণ

অনলাইন পত্রিকা ডেস্কঃ

বহুল আলোচিত নুসরাত জাহান রাফি হ°ত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেছেন মহামান্য আদালত। দ্রুততম সময়ে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের রায় প্রদান করে আদালত নজির বিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। মাত্র ৬১ কার্যদিবসে ঘোষিত রায়ে স্থানীয় প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা ও অধ্যক্ষ সিরাজুদ্দৌলাসহ তালিকাভুক্ত ১৬ আ°সামি সবারই মৃত্যুদণ্ড প্রদান করা হয়।

স্পর্শকাতর এই রায়কে কেন্দ্র করে যেকোনো অপ্রীতিকর ঘ°টনা এড়াতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ফেনী সদরে ও সোনাগাজী উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে নি°রাপত্তা চৌকি বসানো হয়েছে। র্যাবের পাশাপাশি টহলে রয়েছে গো°য়েন্দা বাহিনীর সদস্যরা। ফেনীর আদালত ভবনেও নেওয়া হয়েছে কড়া নি°রাপত্তা ব্যবস্থা। সকরারি গাড়ি ছাড়া প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি সাধারণ কোন গাড়ি। নুসরাতের বাড়িতে রয়েছে সার্বক্ষণিক পুলিশি প্রহরা।

গত ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা উক্ত মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে শ্লী°লতাহানি করেন। এই ঘটনায় নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী থানায় মা°মলা করলে অধ্যক্ষ সিরাজকে গ্রে°প্তার করে পুলিশ। সিরাজ গ্রে°প্তার হওয়ার পর থেকে তার লেলিয়ে দেওয়া লোকজন মা°মলা তুলে নেওয়ার জন্য নুসরাতের পরিবারকে বিভিন্ন হু°মকি দিয়ে আসছিল। মামলা তুলে না নেওয়ায় ৬ এপ্রিল নুসরাতকে প্রশাসনিক ভবনের ছাদে ডেকে নিয়ে হাত-পা বেঁধে আগু°ন লাগিয়ে দেয় বোরকা পরহিত ৫ দূ°র্বৃত্ত। ১০ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় নুসরাত।

এই ঘটনায় নুসরাতের বড় ভাই মাহমুদুল হাসানের দায়ের করা মা°মলাটি হ°ত্যা মা°মলায় পরিনত হয়। ২৮ এপ্রিল মামলার তদন্তের দায়িত্ব নেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। মাত্র ৩৩ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত শেষে ১৬ জনের নামে আদালতে অভি°যোগ পত্র দাখিল করে পিবিআই।

অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা, ছবি সংগৃহীত।

মাত্র ৬১ কার্যদিবসের বিচারিক কার্যক্রম শেষে ১৬ আ°সামি সবারই মৃ°ত্যুদণ্ড প্রদান করেন মহামান্য আদালত। সাজা প্রাপ্ত আ°সামিরা হলেন অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা, উপজেলা আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি রুহুল আমিন, পৌর মেয়র মাকাসুদুল আমিন, মাদ্রাসার শিক্ষক আবদুল কাদের, প্রভাষক আফসার উদ্দিন, মাদ্রাসার ছাত্র নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন, সাইফুর রহমান, মোহাম্মদ যুবায়ের, জাবেদ হোসেন, কামরুন্নাহার, উম্মে সুলতানা, আব্দুর রহিম, ইফতেখার উদ্দিন, ইমরান, শামীম ও শাকিল।

এই রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন ফেনী জজকোর্টের সরকারি কৌশলি (পিপি) মোঃ হাফেজ আহামেদ। তিনি বলেন, “এই রায়ের দিকে সারা দেশের মানুষের দৃষ্টি ছিল। আ°সামিদের বিরুদ্ধে যথাযথ সাক্ষ্য প্রমাণ আমরা হাজির করতে পেরেছি। আদালত আসামিদের অ°পরাধ আমলে নিয়ে দ্রুত সময়ে ন্যায্য রায় দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

আরও পড়ুন

Comments are closed.