পাহাড়ে রঙের মেল

অনলাইন পত্রিকা ডেস্কঃ

রংধনুর সাত রঙের সৌন্দর্যে পুলকিত হয় না এমন মানুষ পৃথিবীতে বিরল। প্রকৃতি তার পূর্ব বা পশ্চিম দিগন্তকে রংধনুর রঙে সাজিয়েছে বারংবার। রংধনুর রঙে যুগে যুগে আকাশকেই রঙিন হতে দেখেছে পৃথিবীর মানুষ। এবার শুধু আকাশ নয় প্রকৃতি পাহাড়কেও সাজিয়েছে রংধনুর সাত রঙে। স্বপ্ন নয় বাস্তবেই রয়েছে এমন বিরল পাহাড় যা বহু রঙে সুসজ্জিত।

রংধনু পাহাড়ঃ সংগৃহীত ছবি

পেরুর ঐতিহাসিক কাস্কো শহরের অদূরেই রয়েছে অনিন্দ্য সুন্দর রঙিন পাহাড়। দক্ষিণ আমেরিকার ঘনবসতি পূর্ণ এই দেশের মানুষ পাহাড়টিকে পবিত্র স্থান হিসেবে মনে করে। রংধনু পাহাড় স্থানীয় ও বিদেশিদের কাছে ‘রেইনবো মাউন্টেন’ নামে সর্বাধিক পরিচিত। সমুদ্র পৃষ্ঠ হতে ৫২০০ মিটার উচুতে অবস্থিত পাহাড়টি বছরের উল্লেখযোগ্য সময় বরপে ঢাকা থাকে।

অপূর্ব সুন্দর এই পাহাড়ে প্রায় ১৪ টি ভিন্ন রঙের উপস্থিতি পাওয়া যায়। স্থানীয় জলবায়ু প্রভাব, বরপগলা পানি, মাটি ও মাটিতে মিশে থাকা বিভিন্ন খনিজ উপাদানের সংমিশ্রণে পাহাড়টি রঙিন রূপ ধারণ করেছে বলে জানান বিশেষজ্ঞরা।

রংধনু পাহাড়ঃ সংগৃহীত ছবি

পাহাড়ের উল্লেখযোগ্য রং গুলোর মধ্যে সাদা রং তৈরি হয়েছে আর্সেনিক ও ক্যালসিয়ামের মিশ্রণের ফলে। গোলাপি রং তৈরি হয়েছে লাল কাদামাটি, কাঁদা ও বালির মিশ্রণে। লোহা সম্বৃদ্ধ কাদামাটির মিশ্রণে তৈরি হয়েছে লাল রং। সবুজের সৃষ্টি হয়েছে ফেরো ম্যাগনেসিয়াম সম্বৃদ্ধ ফিলাইটাইস এবং ক্লাইসের কারণে। ধূসর রঙটি ফ্যাংলোমেট্রেটের একটি উপদান যা কোয়ারটারি যুগের শিলার সাথে ম্যাগনেসিয়ামের সংমিশ্রণে তৈরি হয়েছে। সালফার সম্বৃদ্ধ ক্যালকেরিয়াস বেলে পাথরের উপস্থিতির কারণে তৈরি হয়েছে পাহাড়ের হলুদ রং।

বিভিন্ন রঙের সমারোহে গঠিত পাহাড়টি দীর্ঘদিন মানুষের অগোচরেই ছিল। বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাবে বরপ গলে রঙিন পাহাড়টি মানুষের দৃষ্টিগোচর হয় মাত্র ৪-৫ বছর আগে। ভ্রমণ পিপাসু মানুষের জন্য প্রকৃতির উপাহার স্বরূপ রংধনু পাহাড় দৃশ্যমান হওয়ার পর থেকেই এটির প্রতি মানুষের আগ্রহ বেড়েই চলেছে।

আরও পড়ুন

Comments are closed.